পি.সি.সরকার: জাদু দিয়ে যিনি বোকা বানিয়েছিলেন শেরে বাংলাকেও! - প্রিয়লেখা

পি.সি.সরকার: জাদু দিয়ে যিনি বোকা বানিয়েছিলেন শেরে বাংলাকেও!

Sanjoy Basak Partha
Published: November 3, 2017

সত্যজিৎ রায়ের ফেলুদা পড়েছেন, অথচ পি.সি. সরকারের নাম শোনেননি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। পি.সি.সরকার অবশ্য শুধু ফেলুদার গল্পের কারণেই নন, নিজ কীর্তিতেই ভাস্বর হয়ে আছেন জাদুবিদ্যার ইতিহাসে। প্রখ্যাত ভারতীয় জাদুশিল্পী পি.সি.সরকারকে নিয়েই আজকের প্রিয়লেখার আয়োজন।

পি.সি.সরকার নামে পরিচিত হলেও তাঁর পরিবার প্রদত্ত নাম প্রতুল চন্দ্র সরকার। ১৯৫০ থেকে ১৯৬০ পর্যন্ত নিজের জাদুর মায়ায় শুধু ভারতই নয়, মাতিয়ে রেখেছিলেন আন্তর্জাতিক অঙ্গনও। তাঁর ‘ইন্দ্রজাল’ শো এর মাধ্যমে দর্শকদের বিমোহিত করে রেখেছিলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই জাদুশিল্পী। নিজের মায়াবী কৌশলের মাধ্যমে দর্শকদের মধ্যে ভ্রম তৈরি করায় জুড়ি ছিলনা পি.সি.সরকারের।

মূলত ভারতীয় হিসেবে পরিচিত হলেও পি.সি.সরকারের জন্ম কিন্তু আমাদের বাংলাদেশেই। ১৯১৩ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি বর্তমান বাংলাদেশের টাঙ্গাইল জেলার অশোকপুর গ্রামের এক হতদরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন পি.সি.সরকার। একদম ছোটবেলা থেকেই জাদুর প্রেমে মত্ত ছিলেন তিনি। জাদুকর গুণপতি সরকারকে গুরু মেনে তাঁর অধীনেই নিজের জাদুবিদ্যা শিক্ষার সূচনা করেন পি.সি.সরকার। শিবনাথ হাইস্কুলের শিক্ষার্থী পি.সি.সরকার তাঁর নিজের স্কুলে প্রথম জাদু দেখানো শুরু করেন। ১৯৩৩ সালে আনন্দমোহন কলেজ থেকে গণিতে বি.এ. পাশ ও করেন। এরপর জাদুকেই তিনি তাঁর পেশা হিসেবে বেছে নেন।

তবে কেবল পেশা নয়, জাদু ছিল পি.সি.সরকারের কাছে একপ্রকার নেশার মতনই। তাঁর শো’গুলোর মূল বৈশিষ্ট্য ছিল রঙ্গিন কস্টিউম, দুর্দান্ত স্টেজ সেটিং ও মনোমুগ্ধকর প্রপস। সূক্ষ্ম জাদুর কৌশল দিয়ে সরকার পরিণত হয়েছিলেন সে সময়ের অন্যতম বিশ্বসেরা জাদুশিল্পীতে।

জাদুকরের জীবন:

১৯৩৪ সাল থেকে ভারত ও জাপানে নিয়মিত জাদু প্রদর্শনের মাধ্যমে দেশের বাইরে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও নিজের নাম ছড়িয়ে দিতে শুরু করেন সরকার। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্র সহ বিশ্বের প্রায় ৭০ টিরও বেশি দেশ ঘুরে নিজের জাদুর মায়াজালে মোহিত করেছেন দর্শকদের। তাঁর জনপ্রিয়তা তখন এতটাই তুঙ্গে ছিল, তাঁর শো গুলোতে যে পরিমাণ লোকসমাগম হত তা থিয়েটারে দর্শক উপস্থিতির রেকর্ডকে নিয়মিতভাবেই ভেঙ্গে দিত। আন্তর্জাতিক টেলিভিশন নেটওয়ার্কেও অনেকবার নিজের জাদু প্রতিভার প্রমাণ রেখেছেন পি.সি.সরকার।

শেরে বাংলাকে বোকা বানানো পারফরম্যান্স:

পি.সি.সরকার নিজের বিস্ময়কর জাদু প্রতিভা দিয়ে চমকে দিয়েছিলেন তৎকালীন অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরে বাংলা এ.কে.ফজলুল হককেও। কলকাতার ইম্পেরিয়াল রেস্টুরেন্টে একবার ফজলুল হকের সামনে জাদু দেখাচ্ছিলেন পি.সি.সরকার। তিনি ফজলুল হককে অনুরোধ করলেন একটি পাতলা সাদা কাগজের উপর তাঁর ইচ্ছামত যেকোনো কিছু লিখতে। এরপর ফজলুল হকের মন্ত্রীপরিষদের সদস্যদের একের পর এক সবাইকেই বললেন সেখানে সই করতে। সই করা শেষে ফজলুল হক যা দেখলেন তাতে তাঁর চক্ষু ছানাবড়া! অবাক বিস্ময়ে তিনি দেখলেন, ওই সাদা কাগজে মন্ত্রীপরিষদের সকল সদস্যের পদত্যাগপত্র লেখা আছে! এর চেয়েও বড় বিস্ময়, সেই একই কাগজে পি.সি সরকারকে অবিভক্ত বাংলার নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণাও দেয়া আছে! এই জাদু দেখে সত্যিই খুব অবাক হয়েছিলেন শেরে বাংলা এ.কে. ফজলুল হক।

ব্রিটেনে পি.সি.সরকারের জাদু:

১৯৫২ সালে ব্রিটেনে জাদু দেখাতে গিয়ে নিজের খুব চতুর একটা প্রচারণা চালিয়েছিলেন পি.সি.সরকার। টেলিভিশনে প্রচারিত হচ্ছিল তাঁর জাদুর শো। সেখানে তিনি Buzz Show Illusion (করাত দিয়ে মানুষ দ্বিখণ্ডিত করার ভ্রম তৈরি) এর প্রদর্শনী দেখাচ্ছিলেন। সেখানে তাঁর সহকারীকে ‘দ্বিখণ্ডিত’ করার পর আবার ‘জোড়া’ লাগানোর আগেই টিভিতে শো অফ হয়ে যায়। ফলে টিভি পর্দার ওপাশে থাকা দর্শকেরা প্রচণ্ড চিন্তিত হয়ে পরেন সরকারের সহকারীর জীবন নিয়ে। টেলিভিশন সেন্টারগুলোতে একের পর এক ফোন কল আসতে থাকে সরকারের সহকারীর ভাগ্যে কি ঘটল তা জানবার জন্য। পরদিন কিছু পত্রিকায় এটি হেডলাইন হিসেবেও এসেছিল।

পুরষ্কার ও সম্মাননা:

দুর্দান্ত জাদু কৌশলের জন্য ক্যারিয়ারজুড়েই দেশি বিদেশী অসংখ্য সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন পি.সি.সরকার। ‘The Sphinx’, ‘German Goldbar’, ‘The Dutch Tricks Prize’ পুরষ্কার পেয়েছেন তিনি। ১৯৬৪ সালের ২৬ জানুয়ারি তৎকালীন ভারতীয় রাষ্ট্রপতি সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণাণ পি.সি সরকারকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার ‘পদ্মশ্রী’ তে ভূষিত করেন।

প্রখ্যাত জাদুকর পি.সি.সরকারের সম্মানে ভারতের একটি রাস্তার নামকরণ করা হয়েছে তাঁর নামে। ১৯৪৬ ও ১৯৫৪ সালে দুইবার জিতেছেন ‘জাদুর অস্কার’ খ্যাত পুরষ্কার ‘দ্য ফিনিক্স’। জার্মান ম্যাজিক সার্কেল থেকে পেয়েছেন ‘দ্য রয়্যাল মেডেলিয়ন’ পুরষ্কার। এছাড়া ২০১০ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি মহান এই জাদুশিল্পীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে  একটি স্ট্যাম্প ও বের করে ভারত।

অনেক জাদু সংঘের সাথেও প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন পি.সি.সরকার। ‘International Rotary Club’, ‘Societies of Magicians from United Kingdom, Belgium, Germany, France & Japan’ সংঘগুলোর সাথে জড়িত ছিলেন তিনি। ইউরোপে সরকারকে নিয়ে অনেক প্রথিতযশা লেখকেরা বইও লিখেছেন।

বেঁচে থাকা অবস্থায় প্রচুর ম্যাজিক ম্যাগাজিন, আর্টিকেল ও জার্নালে পি.সি.সরকারের নিজের লেখা প্রকাশিত হয়েছে। ‘হিন্দু ম্যাজিক’, ‘সরকার অন ম্যাজিক’, ‘হিস্টোরি অফ ম্যাজিক’ সহ জাদুবিদ্যার উপর কম করে হলেও ২২ টি বই লিখেছেন তিনি।

১৯৭১ সালের ৬ জানুয়ারি জাপানে শো চলাকালীন সময়েই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান গুণী এই জাদুশিল্পী।