ডিজিটাল মার্কেটার নেইল প্যাটেলঃ বারংবার ব্যর্থতা যাকে দমাতে পারেনি। - প্রিয়লেখা

ডিজিটাল মার্কেটার নেইল প্যাটেলঃ বারংবার ব্যর্থতা যাকে দমাতে পারেনি।

CIT-Inst
Published: March 1, 2021

ডিজিটাল মার্কেটার হিসেবে কাজ করেন অথচ নেইল প্যাটেলের নাম শুনেন নাই এমন মানুষ এ যুগে পাওয়া খুবই দুষ্কর। ডিজিটাল বিপণন বিশেষজ্ঞ এবং ইন্টারনেট বিপণনকারীদের মধ্যে তাঁর নামটি খুব পরিচিত। যদি আমরা এই মুহূর্তে সেরা কয়েকজন ডিজিটাল মার্কেটার বা ব্লগারের কথা চিন্তা করি প্রথমেই যে নামটি আমাদের সবার মনে আসবে তা হল #Neil_Patel.
তিনি এমন একজন ব্যক্তি যে সন্তুষ্টিতে বিশ্বাসী না, পরিপূর্ণতায় বিশ্বাসী। যেকোনো কাজকে নিখুঁতভাবে সম্পন্ন করতে তিনি প্রতিটি ব্যবসায়ের কৌশল ভালোভাবে রপ্ত করে তা যথাসময়ে প্রয়োগ করেন। আর এর জন্যই হয়ত আজ তিনি সফল। নানা চরাই-উতরাই পেরিয়ে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছেছেন।
১৯৮৫ সালের ২৪ শে এপ্রিল ইংল্যান্ডের লন্ডনে নেইল প্যাটেল জন্মগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে তিনি বাবা, মা এবং বোনকে নিয়ে ক্যালিফোর্নিয়ায় চলে আসেন। বাবার সীমিত আয়ে তাদের পুরো পরিবারের ভরণ-পোষণ চলতো, ফলে সংসারে অভাব না থাকলেও খুব একটা সচ্ছলতা ছিল না। জীবন যুদ্ধের লড়াই সংগ্রামের মধ্যদিয়েই যেতে হয়েছে তাঁর পুরো পরিবারকে। তাঁর মামার বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা ছিল। ব্যস্ততার কারণে তিনি সেগুলো ঠিকঠাক দেখাশুনা করতে পারতেন না। নেইলের মা তার ভাইয়ের ডে-কেয়ার ব্যবসা পরিচালনার দায়িত্ব নেন। এ ব্যবসা থেকে তাঁর মায়ের বেশ ভালো উপার্জন শুরু হয়। নেইলের বাবা- মায়ের দু’জনের মাসিক আয় তখন পরিবারের জন্য যথেষ্ট হলেও তারা সন্তুষ্ট ছিলেন না। তাঁরা ছিলেন অনেক বেশি উচ্চাকাঙ্ক্ষী।
নেইল প্যাটেল সর্বদা একটি সমৃদ্ধ জীবনযাপনে বাস করতে চেয়েছিলেন যার জন্য তিনি শৈশবকাল থেকেই বিভিন্ন কাজ করা শুরু করেন। অর্থ আয়ের জন্য তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে মিউজিক সিডি বিক্রি করতেন। বেশি অর্থোপার্জনের জন্য তিনি ব্ল্যাক বক্স বিক্রি করা শুরু করেন। এই ব্যবসায় তার বেশ লাভ আসতে থাকে কিন্তু যখন তিনি বুঝতে পারেন যে এটি দীর্ঘমেয়াদী চলবে না তখন তিনি পুনরায় মোটরগাড়ির যন্ত্রাংশ বিক্রি শুরু করেন।
এরপর তিনি ফার্ম ব্যবসা শুরু করেন কিন্তু কিছুদিন পর এই ব্যবসাও গুটিয়ে নেন। কোয়ালিটি সিস্টেমে কাজ শুরু করার পর কিছুদিন পর দেখলেন এ কাজটাও বেশ বিরক্তিকর, কারণ দ্বারে দ্বারে গিয়ে মানুষের পরিষেবা দিতে হয়। তার বোন তাকে ওরাকল কনসাল্টিং এ জব দেয়। কিন্তু কিছুদিন পর তিনি সেখান থেকেও বিদায় নেন এবং মনস্টার ডট কমে জয়েন করেন। নেইল এখান থেকে জীবনের অর্থ খুঁজে পান। খুঁজে পান সফল হওয়ার মূলমন্ত্র। এই জন্য তিনি পুনরায় চাকরি খোঁজার পরিবর্তে মনস্টার ডট কম থেকে অর্থ উপার্জনের নানা কৌশল ভালোভাবে রপ্ত করতে থাকেন।
একপর্যায়ে অনলাইন মার্কেটিং-এর প্রতি তার ঝোঁক বাড়ে। তিনি তার বোনের স্বামীর সাথে ভিশন ওয়েব হোস্টিং নামে একটি হোস্টিং সংস্থায় প্রায় মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস এখানেও তিনি ব্যর্থ হন।
হোস্টিং ব্যবসায় ক্ষতির শিকার হয়ে তিনি আবার ‘ক্রেজি এগ’ নামে একটি সংস্থা গড়ে তুলেন। সংস্থাটি নিয়ে প্রচুর গুঞ্জন তৈরি হওয়ায় কেউই এতে বিনিয়োগ করতে সাহস দেখায় না।
তারপরে তিনি আবার ইন্টারনেট বিপণন সংস্থা শুরু করলেন। এবং এটিই ছিল প্যাটেলের জীবনে নেয়া অন্যতম সেরা সিদ্ধান্ত।
ব্যর্থতাকে জয় করে দৃঢ় প্রচেষ্টায় নেইল প্যাটেল এখন সফলদের একজন। মাত্র ১৬ বছর বয়সে প্রতি মাসে ৩৫০০ ডলার উপার্জন করেছেন, এই বয়সী অনেকের কাছে যা নিছক স্বপ্ন মনে হবে।
নেইল প্যাটেল “Kissmetrics”, ‘Hello Bar’ এবং ‘Crazy Egg’ এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা। তিনি নিউইয়র্ক টাইমসের বেস্ট সেলার লেখক এবং উদ্যোক্তা। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল তাকে শীর্ষ প্রভাবশালী অনলাইন মার্কেটার বলে অভিহিত করেছে। ফোর্বস-এর মতে, তিনি বিশ্বের সেরা শীর্ষ ১০ বিপণনকারীদের একজন।
#Entrepreneur_Magazine মনে করে তার হাতে বিশ্বের ১০০ টি ব্যবসা সফল প্রতিষ্ঠান তৈরি হয়েছে।
সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা ৩০ বছরের কম বয়সী ১০০ সফল উদ্যোক্তাদের মধ্যে প্যাটেলকে শীর্ষ সফল অনলাইন মার্কেটার হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন।
বারংবার ব্যর্থতা স্বপ্নবাজ এই তরুণকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। মাত্র ৩৬ বছর বয়সী এই তরুণ এখন আনুমানিক ৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মালিক।
দৃঢ় প্রত্যয় ও আত্মবিশ্বাস নিয়ে কোন কাজ শুরু করলে একসময় যে সফলতা আসে নেইল প্যাটেল যেন তারই প্রমাণ। এই মুহূর্তে প্যাটেলের পক্ষে সবচেয়ে বড় অর্জন তাঁর স্মার্ট কাজ। তাঁর আত্মপ্রত্যয় ও শ্রম আমাদের অনুপ্রেরণার উৎস।