কাঁচা ফল ও সবজি ফরমালিন মুক্ত করার কিছু ঘরোয়া উপায়। - প্রিয়লেখা

কাঁচা ফল ও সবজি ফরমালিন মুক্ত করার কিছু ঘরোয়া উপায়।

Priyolekha
Published: July 30, 2017

বর্তমান সময়ে আমরা বাইরে থেকে কিছু খেতে চাইলেই মনের মধ্যে একটা শঙ্কা থেকেই যায় , আমি যা খাচ্ছি তা কতটুকু খাঁটি? যা খাচ্ছি তা কি আদৌ স্বাস্থ্য সম্মত? স্বাস্থ্য সচেতন হতে গিয়ে আমরা খাবারের স্বাদ থেকে বঞ্চিত হচ্ছি প্রতিনিয়ত। বিশেষ করে বাজারের কাঁচা যেসব ফল কিংবা সবজি যা আমরা রান্না ছাড়াই খাই তা আসলে কতটুকু স্বাস্থ্যসম্মত বা ফরমালিন বিহীন। ফরমালিন নিয়ে আমরা সকলে খুব বেশি আতঙ্কিত ।আমাদের ফরমালিন সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারনা না থাকায় আমরা স্বাস্থ্য ঝুকিতে রয়েছি।আসুন জেনে নেই –

ফরমালিন আসলে কি?

ফরমালিন কতটা ক্ষতিকর?

আর মানবদেহে এর প্রভাব কেমন?

ফরমালিন কি?

ফরমালিন এক ধরনের তরল রাসায়নিক পদার্থ। ফরমাল্ডিহাইড ও পানির মিশ্রন হল  ফরমালিন। সাদা পাউডার সদৃশ পানিতে অতি দ্রবনীয়। শতকরা ৩০-৪০% পানিতে  ফরমাল্ডিহাইডের দ্রবণই ফরমালিন যা দেখতে অনেকটাই পানির মতই দেখতে। ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের আশায় এই রাসায়নিক ব্যবহার করেন। এই রাসায়নিক মূলত পোষাকশিল্পে, ঔষধশিল্পে এবং প্রধানত কোন কিছু সংরক্ষন করার কাজে ব্যবহার করা হয়।

কাঁচা ফল ও সবজি ফরমালিন মুক্ত করার কিছু ঘরোয়া উপায় যা দিয়ে আপনি সম্পূর্ন না হলেও ফরমালিন মাত্রা কিছুটা কমানো সম্ভব।যেমন-

  • বাজার থেকে আনা কাঁচা সবজি ও ফল খাওয়ার আগে ১ঘন্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন।
  • ফল খাওয়ার আগে পানির কলের মুখ বরাবর কিছুক্ষন ধরে রাখলে ফলের গায়ে সরাসরি পানি পড়লে ফরমালিন ধুয়ে যায়।
  • পানিতে লবন ও লেবুর রস দিয়ে ফল ডুবিয়ে রাখলে ফরমালিন মাত্রা কিছুটা হলেও কমানো সম্ভব।
  • সবচেয়ে ফলপ্রসূ উপায় হল ভিনেগারের পানিতে ফল/ সবজি ডুবিয়ে রাখুন। ভিনেগার ফরমাল্ডিহাইডের সাথে বিক্রিয়া করে অপসারনে সক্ষম।

জেনে নিলাম ফরমালিন মুক্ত করার কিছু ঘরোয়া উপায়। আসুন তবে এবার জেনে নেই ফরমালিনের ক্ষতিকর দিক সমূহ-

  • ফরমালডিহাইড চোখের রেটিনাকে আক্রান্ত করে রেটিনার কোষ ধ্বংস করে। ফলে মানুষ অন্ধ হয়ে যেতে পারে।
  • পেটের পীড়া ,বদহজম, ডায়রিয়া হওয়ার সম্ভবনা থাকে।
  • শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা , ফুসফুস ও পাকস্থলীতে আলসার ও ক্যান্সার সহ মারাত্মক রোগ সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • রাসায়নিক পদার্থ লিভার, কিডনিকে ধীরে ধীরে অকেজো করে দেয়।
  • মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করে এইসব রাসায়নিক উপাদান যা স্মৃতিশক্তি লোপ করে দেয়।
  • গর্ভবতী মায়েদের জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকর এই ফরমালিন। শিশুর শারীরিক বিকলাঙ্গতা, প্রসবের সময় বিভিন্ন জটিলতা দেখা দেয়।

 

ফরমালিন অত্যন্ত ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ যার প্রভাব আমাদের দেহ ও মনে পড়ে তাই প্রয়োজন সচেতনতা। আমরা সচেতন হলেই যে কোন সমস্যা থেকে কিছুটা হলেও রেহাই পেতে পারি। আর সচেতনতা বৃদ্ধি করতে চোখ রাখুন প্রিয়লাখার স্বাস্থ্যবার্তায়। সকলের সুস্থ্যতাই আমাদের কাম্য।