কফির যত উপকারীতা, অপকারীতা। - প্রিয়লেখা

কফির যত উপকারীতা, অপকারীতা।

Priyolekha
Published: July 26, 2017

সারাদিনের শত কাজের ফাকে একটুখানি প্রশান্তির জন্য আমরা প্রতিদিনই  কফি পান করে থাকি। যা আমাদের কাজের চাপ কিছুটা হলেও কমিয়ে নতুন করে কাজ করার অনুপ্রেরনা দেয়। কিছুক্ষনের জন্য হলেও মস্তিষ্কের নিউরনগুলো শান্ত হয়ে পুনরায় পূর্ন উদ্দীপনা নিয়ে কাজ করার ক্ষমতা ফিরে পায়। আমরা প্রতিদিনই কেউ কেউ একাধিকবারও কফি পান করি। কিন্তু আমরা কি আদৌ জানি কফি আমাদের জন্য কতটা প্রয়োজন?

প্রতিদিন কি পরিমান কফি পান করা উচিত?

আসলে এইসব প্রশ্ন কখনো আমাদের মনেই আসে নি। কিন্তু আমরা জানি প্রত্যেক ক্রিয়ার সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া থাকে।  কফি নিদির্ষ্ট মাত্রায় পান করা যেমন দেহের জন্য প্রয়োজন তেমন অতি মাত্রায় পান করা শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

আসুন জেনে নেই কফির উপকারিতা কি আর অপকারীতাটাই বা কি?

কফি কি? এতে কি কি উপাদান রয়েছে?

কফির উপকারিতা-

কফি পানে আপনার শরীর মনের উপর বেশ প্রভাব ফেলে।যেমন-

  • যাদের মাথা ব্যথা সমস্যা তাদের জন্য কফি অনেক উপকারী। কেননা আমাদের স্নায়ুগুলো যখন বিভিন্ন কারনে দূর্বল কিংবা কর্মশক্তি হারিয়ে ফেলে তখন আমরা মাথায় ব্যাথা অনুভব করে থাকি। কফি পান করা হলে আমাদের স্নায়ুগুলো সক্রিয় হয়ে যায়।মাথা ব্যথা জনিত সমস্যা দূর করতে কফি অনেক গুরুত্বপূর্ন।
  • কফিতে মনোদ্দীপক উপাদান থাকে বলে কফি পানে আপনি হয়ে উঠবেন সতেজ আপনার মানসিক চাপ কিছুটা হলেও কমে যাবে।
  • বলা হয়ে থাকে , যারা নিয়মিত কফি পান করে থাকেন তাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কম থাকে।
  • কফিতে ক্যাফেইন থাকে বলে কফি রক্তচাপ কমাতে বেশ গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে।
  • হৃদরোগ অতি মারাত্মক আত্মঘাতী রোগ। কফি পান করলে হৃদ রোগের ঝুঁকি কমে।

সঠিক মাত্রায় কফি পান করা হলে আমাদের অনেক উপকারী ।কিন্তু যদি মাত্রা ছড়িয়ে যায় তাহলে কিছু ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে ।যেমন-

  • কফিতে রয়েছে পলিফেনন জেস্টানিন নামক উপাদান যা আয়রন শোষণ করে। জেস্টানিনরে সঙ্গে আয়রন মিশে শরীর থেকে বের হয়ে যায়। অতিরিক্ত কফি পান আপনার শরীরে আয়রনের ঘাটতি ঘটাবে।
  • দুপুরের ভারী খাবার কিংবা রাতের খাবারের পর কফি পান করা উচিত নয়। কেননা কফি ভিটামিন ,থায়ামিন শোষন করে বলে বেরিবেরি রোগ হওয়ার সম্ভবনা থাকে।
  • কফিতে প্রোটিন ও আমিষ শোষন  ক্ষমতা থাকে বলে খাবার হজমে বাধা দেয়।
  • অতিরিক্ত কফি পান করলে পাকস্থলিতে অম্লত্ব বৃদ্ধি পায় যা ক্ষুদামন্দা ,খাদ্যে অরুচি এসব সমস্যা সৃষ্টি করে।

 

তাই সুস্থ থাকতে নিয়মিত নিদির্ষ্ট অনুপাতে কফি পান করুন। সুস্থ থাকুন সুস্থ রাখুন সাথে থাকুন  প্রিয়লেখার।