আত্মোনয়ন ধাপঃ পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে চান? - প্রিয়লেখা

আত্মোনয়ন ধাপঃ পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে চান?

ahnafratul
Published: October 21, 2017

রুপালী পর্দায় শার্লক হোমস কিংবা দুঁদে গোয়েন্দাদের নানা ধরণের কার্যকলাপ দেখে মাঝে মাঝে নিজেদের নিয়ে আফসোস করি না, এমন মানুষ বোধহয় কমই রয়েছে। আসলে কেবলমাত্র গোয়েন্দা কিংবা অনুসন্ধিৎসুদের জন্যই নয়, চারপাশে কি ঘটছে এবং হচ্ছে তা দেখার ক্ষমতা থাকা খুবই জরুরী। এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যারা স্রেফ অবহেলা করবার কারণে অনেক বড় বড় সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। সুযোগ অন্য কেউ হাতিয়ে নিয়ে খুব সহজেই নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলছে বেশ ভালোভাবে। স্টিভ জবস একবার বলেছিলেন,

“আমি আগামীকাল কিংবা পরশুর চিন্তা করে কোন কাজ করি না। আগামী পাঁচ কিংবা দশ বছর পর আমার ভবিষ্যত কোনদিকে যেতে পারে, তা চিন্তা করে কাজ করাটা খুব জরুরী।”

শুধুমাত্র কর্মক্ষেত্রের জন্যই না, পড়াশুনা, মনোনিবেশ করা, চারপাশকে ভালোভাবে দেখা ও কোন ঘটনা সম্পর্কে জানা- এসবকিছুই নির্ভর করে আপনার পর্যবেক্ষণ শক্তি কেমন, তার ওপর। আসুন, পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা কিভাবে আরেকটু উন্নত করা যায়, তারওপর কিছু হালকা আলোচনা করা যাকঃ

১) যা দেখতে ভালো লাগে, তা মন দিয়ে দেখুনঃ

এটা সত্য যে আমাদের মস্তিষ্ক সবকিছু দেখতে চায় না। যেমন উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, অনেকগুলো রঙ আপনার সামনে উপস্থিত করা হল। লাল, নীল, সাদা, বেগুনি এমন আরো অনেক রঙ। আপনার মস্তিষ্ক নীল রঙ গ্রহণ করতে ও আপনাকে ভালোভাবে দেখাতে পছন্দ করে। আপনি নীল রঙটিই ভালোভাবে দেখুন। এটিকে পর্যবেক্ষণ করুন ও এর নানা ধরণের খুঁত কিংবা ভালো দিক খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন। শুধুমাত্র পছন্দের বিষয়কে একনজর দেখে তাকে এড়িয়ে যাবেন না। মাঝে মাঝেই একটি কথা আমরা শুনে থাকি। যে ক্ষেত্রে আমাদের সক্ষমতা সবচেয়ে বেশি, সেটিকে আরো শাণিত করতে হবে। বিশেষ ক্ষেত্রটিতে আমাদের হয়ে উঠতে হবে সকলের চাইতে সেরা। তাহলেই আমরা নিজেদের পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাকে আরো উন্নত করতে পারব। নতুন কোন শখ বা নতুন কোন চাকরি, মোটকথা নতুন কোন পরিবেশের নেতিবাচক চিন্তাগুলো আগে না এনে ভাবতে থাকুন এর থেকে ইতিবাচক কোন কোন বিষয়গুলো উঠিয়ে আনা যায়, যা আপনার জন্য ভালো ফল বয়ে আনবে।

২) নতুন জিনিসকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিনঃ

নতুন কিছুর জন্য চোখ রাখা এবং তা করা খুব সহজ কাজ নয়। আমাদের চারপাশে নানা কিছু ঘটছে। এসব কিছু আমাদের মাঝে একধরণের ধাক্কা বা ভাবান্তর ঘটায়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে সবকিছুকেই আমরা আমলে নেব কি না। সবকিছু আমাদের পক্ষে সামাল দেওয়া যেমন সম্ভব নয়, ঠিক তেমনি সবকিছুকে নিয়ে চিন্তা করাও আমাদের জন্য দরকার নেই। মানুষ হিসেবে আমরা যে জিনিসটা চাই, তা হচ্ছে নিজেদের উন্নতি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ব্যক্তিগত পর্যায়ে আপনি কিভাবে নিজেকে উন্নত করতে পারবেন।

 

ক) কোন ভিড়ে কিংবা জমায়েতে নিজেদেরকে গুটিয়ে না রেখে মানুষের সামনে আত্মপ্রকাশ করুন। তাদের হাবভাব দেখুন, চলাফেরা দেখুন, কথাবার্তা দেখুন। এই পরিস্থিতিতে নিজে থাকলে কি করতেন, তা নিয়ে চিন্তা করুন। পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা বাড়ান। চারপাশ বিবেচনা করতে শিখুন।

খ) ছোট একটি পকেট ডায়েরী নিজের সাথে রাখতে পারেন এখন থেকেই। নতুন কোন জায়গা, নতুন কোন মানুষের সাথে পরিচয় হলে তা দিন তারিখসহ লিখে রাখুন। তবে যে বিষয়গুলো আপনার ভালো লেগেছে, তা মার্ক করে রাখুন। এরফলে দিনশেষে নিজেই বুঝতে পারবেন কোন ধরণের জিনিসের প্রতি আপনি আসক্ত।

গ) নিজের এলাকা সম্পর্কে যদি সচেতন হতে চান ও কোথায় কি ঘটছে জানতে চান, তাহলে নিজের এলাকাভিত্তিক খবর রাখুন। আপনি পারমাণবিক বোমার খবর জানেন, রাশিয়া চীনে কি হচ্ছে তা জানেন কিন্তু পাশের এলাকায় খুব গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ই হচ্ছে তা জানেন না। এর মানে হচ্ছে আপনি অন্যদের চাইতে পিছিয়ে আছেন। এই নতুন নতুন তথ্যগুলো নিজের মস্তিষ্কের ভাণ্ডারে জমা করে নিন। আখেরে লাভ আপনারই হবে।

ঘ) নতুন কোন জায়গায় গেলে কিংবা কারো সাথে কথা হলে যদি চান, তাহলে হালকা একটু স্কেচ করে নিতে পারেন। পরবর্তীতে নিজের স্কেচের মাধ্যমে যাচাই করতে পারবেন পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা কতটুকু ছিল এবং তা আপনার জন্য কতটুকু উপকার বয়ে আনতে পেরেছে।

৩) প্যাটার্ন লক্ষ্য করুনঃ

আমাদের এই বিশ্ব চরাচরে যা কিছু রয়েছে, তা সবকিছুই একটা প্যাটার্ন মেনে চলে। প্রকৃতি কখনোই নিজস্ব নিয়মের বাইরে যায় না। মানুষের কথা, ভঙ্গি, হাসি চলাফেরা, বাড়িঘর, রাস্তা, নদী, পাহাড়, পাখির উড়ে চলা সবকিছুর মাঝেই একটা প্যাটার্ন রয়েছে। এই প্যাটার্নগুলো বুঝে চলার চেষ্টা করুন। পর্যবেক্ষণ করুন। চারপাশের মাঝে একধরণের সিনক্রোনাইজেশন আছে, তা বোঝার চেষ্টা করুন।

৪) শুধু কথাই নয়, দেখুনওঃ

আমরা যখন অন্যের সাথে কথা বলি, তখন আমাদের চোখ কিন্তু মাঝে মাঝে গোয়েন্দাদের মত হয়ে ওঠে। এই মানুষটা যা বলছে তা সত্যি না, এই মানুষটার হাসি মেকি, এই মানুষটা হয়ত মুখে এক আর মনে আরেক বলছে- এমন নানা ধরণের চিন্তাভাবনা আমাদের মাথায় ভেসে ওঠে। কেমন করে এগুলো ধরতে পারি আমরা? আমাদের পর্যবেক্ষণ ক্ষমতার জোরে। সামনে থাকা মানুষটির সাথে কেবল কথা কিংবা বিষয়ই নয়, সে কেমনভাবে কথা বলছে সেটি লক্ষ্য করুন। মুখের ভঙ্গিমা, হাত পা নাড়াচাড়া, শারীরিক অঙ্গভঙ্গি ইত্যদি নানা জিনিস দেখবার মাধ্যমে অনেক নতুন কিছু আপনার মাথায় চলে আসতে পারে। এসব কিছুই আপনাকে সাহায্য করবে নিজের দক্ষতাকে আরেকধাপ সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে।

৫) নোট করুনঃ

“আজ আমি নতুন একটা মানুষের সাথে কথা বলেছি”

“আজ আমি নতুন একটা জায়গা দেখলাম”

“আজ আমি প্রথম পাহাড়ে উঠেছি”

“আজ আমাদের ক্লাসে নতুন এক টিচার এসেছে”- এই ধরণের কথাগুলো আমরা প্রায়ই কথোপকথনের সময় অন্যের সাথে ব্যবহার করে থাকি। কেমন হয় যদি নিজেদের এই অভিজ্ঞতাগুলো আমরা নিজেদের ডায়রীতে লিখে রাখি? নোট লিখার মাধ্যমে নানা ধরণের ডিটেইলিং, ছোটখাট বিষয়, অন্যকে দেখার চোখ গুণাবলির মাধ্যমে নিজেদের উন্নতি করা যায়।

মনোবল আর ইচ্ছা, নিজেদের উন্নত করবার জন্য এই দুটো জিনিসের গুরুত্বই প্রধান। তবে এরসাথে আরো কিছু উপাদান যোগ করতে পারলে একজন মানুষ নানাভাবে নিজের অবস্থার পরিবর্তন করতে পারে। পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা এরমধ্যে অন্যতম একটি।

আজ আর নয়। প্রিয়লেখার সাথেই থাকুন।

(ফিচারটি তৈরি করতে সাহায্য নেয়া হয়েছে এই সাইটটির)