আইনস্টাইনের জিভের দাম সোয়া লক্ষ ডলার! - প্রিয়লেখা

আইনস্টাইনের জিভের দাম সোয়া লক্ষ ডলার!

ahnafratul
Published: July 30, 2017

আইনস্টাইন।

সর্বকালের সেরা পদার্থবিদদের একজন। তার আপেক্ষিকতাবাদ সূত্রের মাধ্যমে অমর হয়ে আছেন সমগ্র পৃথিবীবাসীর কাছে। তাকে নিয়ে মাতামাতি যেমন কম হয় না, ঠিক তেমনি তাকে নিয়ে মাতামাতি করা পাগলদের সংখ্যাও কম নয়। তবে এসব ভক্তরা ভালোবাসেন আইনস্টাইনকে, তার জীবনধারাকে, তার কর্মকে। তাই তো আইনস্টাইন সম্পর্কিত কোন কিছু নিলামে উঠলে রাশি রাশি টাকা নিয়ে ছুটে যান অকশন হাউজে। এমনই একটি নিলাম সম্প্রতি ঘটে গেল গত ২৭জুন।

আচ্ছা, আইনস্টাইন মজার মুখভঙ্গি করে আছেন এমন একটি ছবির কথা মনে করুন তো? আমার কিন্তু একটি ছবির কথাই মনে পড়ছে। জিভ বের করে একটি গাড়িতে বসে আছেন তিনি। দেখে মনে হবে বেশ মজা পাচ্ছেন ছবি তোলা কিংবা তার চারপাশের ঘটনায়। নোবেল বিজয়ী পদার্থবিদদের মাঝে এই ছবিটিই সবচেয়ে মজার ও স্মরণীয়।
যুগের পর যুগ ধরে এই ছবিটি স্কুল কলেজের ক্লাসরুমে কিংবা বিজ্ঞান গবেষণাগারের দেয়ালে ঝুলে ছিল কিন্তু কেউ একজন আইনস্টাইনের এই জিভ বের করা আসল ছবিটি সোয়া লক্ষ ডলারের বিনিময়ে কিনে নিয়েছেন।

                                 আইনস্টাইনের জিভ বের করা সেই ঐতিহাসিক ছবি । ছবিসূত্রঃ ফেমাস পিকচার

গত ২৭ জুন, অর্থাৎ বৃহস্পতিবার লস এঞ্জেলেসের নেট ডি স্যান্ডার্স অকশন হাউজ থেকে একজন অজ্ঞাতনামা ক্রেতা আইনস্টাইনের এই ছবিটি কিনে নেন। আইনস্টাইনের এই ছবিটি তোলা হয়েছিল তার ৭২তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে, প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ে। সময়টি ছিল ১৯৫১ সালের ১৪ মার্চ।

এই ছবি তোলার গল্পটি বেশ মজার। আর্থার স্যাজে নামক এক ফটোগ্রাফার তার এই ছবিটি তুলে ফেলেন সৌভাগ্যক্রমে। জন্মদিনের পার্টি শেষ করে আইনস্টাইন চলছিলেন বাড়ির পথে। এমন সময় কিছু ফটোগ্রাফার তাকে ছবির জন্য পোজ দেয়ার অনুরোধ করে। আইনস্টাইন তাদের উদ্দেশ্যে মজার ভঙ্গিতে জিভ বের করে দেন। আর্থার এই ছবিটি তুলে নেন। ইতিহাসের অন্যতম “লাকি শট” বলা হয় আর্থারের তোলা এই ছবিটিকে। আর্থার স্যাজে ছিলেন ইউ পি আই ওয়্যার সার্ভিসের (UPI) এর একজন ফটোগ্রাফার। আইনস্টাইন নিজেও তার এই ছবিটিতে এত মজা পান যে তিনি ইউ পি আই কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন, তাকে যেন মূল ছবিটির নয়টি কপি করে পাঠিয়ে দেয়া হয়। এই ছবিগুলো তিনি ব্যক্তিগত শুভেচ্ছা কার্ড হিসেবে ব্যবহার করেন।
বেশিরভাগ ছবিই এমনভাবে ক্রপ করা হয়েছে যাতে সেখানে শুধু আইনস্টাইনের ছবিটিই দেখতে পাওয়া যায় কিন্তু তার সাথে আরো যে দুজন ছিলেন, তাদের পরিচয় খুব কম পৃথিবীবাসীই জানতে পারে। এদের মাঝে একজন হচ্ছেন ফ্র্যাংক আয়ডেলোট, প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজীর একজন অধ্যাপক। এছাড়াও ফ্র্যাংক ছিলেন প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্সটিটিউট অব এডভান্সড স্টাডির প্রধান। ছবিটিতে আরো ছিলেন ফ্র্যাংকের স্ত্রী, ম্যারি জিনেত্তে।
ছবিটিতে আইনস্টাইনের করা সাক্ষরও রয়েছে।

নিলামে তোলা আইনস্টাইনের আরো কিছু জিনিসঃ
আইনস্টাইনের সাক্ষর সংবলিত চিঠি, অটোগ্রাফ, কোন লেখা ইত্যাদি এমন অনেক নানা জিনিস হরহামেশাই নিলামে চড়া দামে তুলে ধরা হয়ে থাকে। এ বছরেরই একদম শুরুর দিকে একটি চিঠি প্রায় ৫৪,০০০ ডলারে বিক্রি হয়েছিল। চিঠিটি আইনস্টাইন লিখেছিলেন ১৯৫৩ সালে। ধারণা করুন তো চিঠির বিষয়বস্তু কি থাকতে পারে?

বিশেষ আপেক্ষিকতাবাদ নিয়ে আইনস্টাইন তার পদার্থবিজ্ঞানের শিক্ষককে কিছু প্রশ্ন করেছিলেন। এই প্রশ্ন সংবলিত চিঠিটিই নিলামে উঠেছিল। এছাড়াও আইনস্টাইনের বাইবেল নিলামে উঠেছিল ৬৮,৫০০ ডলারে, ২০১৩ সালে। নিউ ইয়র্কের একজন হ্যাট ব্যবসায়ী, যিনি কিনা ইহুদীদের সাহায্য করেছিলেন নাৎসি বাহিনীর হাত থেকে বাঁচাতে, তাকে আইনস্টাইন একটি চিঠি লিখেছিলেন ১৯৩৯ সালে। ২০১৪ সালে এই চিঠিটি নিলামে ওঠে ১২,৫০০ ডলারে।

তবে সাম্প্রতিক সময়ে ধর্ম বিষয়ক আইনস্টাইনের “গড লেটার”টিই বেশি আলোচিত। এই চিঠিতে আইনস্টাইন বলেন যে তার ধর্ম নিয়ে ভাবনা একদমই বালখিল্যতার পর্যায়ে পরে। ২০১২ সালে ই-বে তে এই চিঠিটি বিক্রি হয় প্রায় ৩০লক্ষ ডলারে!

আইনস্টাইনকে নিয়ে এমনই আরো নানা মজার ঘটনা, পাগলামী, ভালোবাসা রয়েছে তার অগণিত ভক্তদের মাঝে। পয়সার মায়া না করে তারা ছুটে যান বিভিন্ন অকশন হাউজে, যেখানে নিলামে তোলা হয় আইনস্টাইনের জীবনের ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর মুহুর্তগুলো।

আজ আর নয়। প্রিয়লেখার সাথেই থাকুন।

(তথ্যসূত্রঃ লাইভ সাইন্স)