অ্যান্ড্রয়েডের জন্য ১০ কৌশল - প্রিয়লেখা
অ্যান্ড্রয়েড ফোন সুরক্ষার ১০ উপায়

অ্যান্ড্রয়েডের জন্য ১০ কৌশল

চৌধুরী সাহেব
Published: August 4, 2016

অ্যান্ড্রয়েডের জন্য ১০ কৌশল

c8kPr

অনেকেই অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে চলা স্মার্টফোন বা ট্যাবলেট কম্পিউটার ব্যবহার করেন।সার্চ ইঞ্জিন গুগলের অর্থায়নে অ্যান্ড্রয়েড ইনকরপোরেটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান এটির মানোন্নয়ন করলেও পরবর্তী সময়ে ২০০৫ সালে গুগল তা কিনে নেয়। উইকিপিডিয়ার দেওয়া তথ্যমতে, ২০১২ সালের শেষের দিকে এসে পৃথিবীতে ১২ কোটির বেশি অ্যান্ড্রয়েডভিত্তিক স্মার্টফোন চালু রয়েছে, যা মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমের ৭২ শতাংশ বাজার দখল করে রয়েছে। কিছু কৌশল অবলম্বন করলে অ্যান্ড্রয়েড সেটের কাজের দক্ষতা আরও বাড়ানো যায়। সে রকম ১০টি কৌশলনিচে দেওয়া হলো।

১. আপনার সেটকে জানুন

আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেটটিকে জানাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। সেটটির ধারণক্ষমতা কত, সেটটির অপূর্ণতা কী—এসব জানা খুব দরকার। কারণ, আপনি যে ফিচার বা অ্যাপস ব্যবহার করছেন, সেটা সেটটির জন্য বাড়তি বোঝা হয়ে দাঁড়াচ্ছে কি না, সেটা বুঝতে সেটটির খুঁটিনাটি আপনার জানতে হবে।

২. হালনাগাদ করুন নিয়মিত

যদি আপনি নিয়মিত অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমকে হালনাগাদ না করে থাকেন, তবে অবশ্যই সেটা করে নিন। গুগল এখন অ্যান্ড্রয়েডের নতুন নতুন সংস্করণ বের করছে, যার প্রতিটিই আগের সংস্করণ থেকে উন্নত ও দ্রুততর। সর্বশেষ অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণে থাকলে আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেট আগের থেকে ভালো কাজ করবে।একই সঙ্গে বেশি স্থিতিশীল গ্রাহক উপযোগী সেবা দিতে পারবে। সর্বশেষ অ্যান্ড্রয়েডের ৪ দশমিক ২ সংস্করণ বাজারে চালু রয়েছে। আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেটের সিস্টেম আপডেট অপশনে গিয়ে অ্যান্ড্রয়েডের সর্বশেষ সংস্করণে হালনাগাদ করে নিতে পারবেন।

৩. মুছে ফেলুন অবাঞ্ছিত অ্যাপস

যখনই আপনি অ্যাপস স্টোর থেকে কোনো অ্যাপস ইনস্টল করবেন, সঙ্গে সঙ্গেই সেটি আপনার ফোনের কিছু জায়গা দখল করবে। একই সঙ্গে সেটি চালু রাখতে সেটের প্রসেসরকে ব্যস্ত রাখবে। অ্যান্ড্রয়েড সেটের যত বেশি জায়গা অ্যাপস দিয়ে পূর্ণ করে রাখবেন অথবা অ্যাপসটি যতটা প্রসেসরকে ব্যস্ত রাখবে, সেটের কাজ ততটা খারাপ হতে থাকবে, যা সেটটিকে ধীরগতির করে ফেলবে। সেসব অ্যাপস ফোনে ইনস্টল করে রাখবেন না, যেগুলোর কোনো দরকার নেই।

৪. অপ্রয়োজনীয় অ্যাপসগুলো থাক নিষ্ক্রিয়

যেসব অ্যাপস আপনি সচরাচর ব্যবহার করেন না, সেসব অ্যাপস নিষ্ক্রিয় করে রাখুন। এতে সেটের প্রসেসরের ওপর চাপ কমবে। অ্যান্ড্রয়েডে পারফরমেন্স অ্যাসিস্ট্যান্ট নামের একটি ফিচার আছে, যেটিতে গিয়ে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপসগুলো ডিজঅ্যাবল করে রাখতে পারবেন। পরবর্তী সময়ে প্রয়োজনের সময় সেগুলোকে আবার এনাবল করে ব্যবহার করতে পারবেন।

৫. হালনাগাদ করুন অ্যাপস

আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেটের অ্যাপসগুলো নিয়মিত হালনাগাদ করুন। অ্যান্ড্রয়েডের অ্যাপস স্টোর গুগল প্লে থেকে অ্যাপস নির্মাতারা নিয়মিত আপডেট দিয়ে থাকেন। এতে অ্যাপসগুলো সহজে ব্যবহারের উপযোগী এবং নতুন ফিচার যুক্ত করে।

৬. ভালো মানের মেমরি কার্ড ব্যবহার করুন

মুঠোফোনের ডেটা কিংবা অ্যাপস সংরক্ষণের জন্য দ্রুতগতির মেমরি কার্ড ব্যবহার করুন। বাজারে অ্যান্ড্রয়েড সেটের জন্য ২ গিগা থেকে ৩২ গিগাবাইটের মেমোরি কার্ড পাওয়া যায়। মেমোরি কার্ড কেনার সময় লক্ষ রাখুন, এটি উচ্চগতিসম্পন্ন কি না। যদি আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেটটির পারফরমেন্স বাড়াতে চান, তাহলে অবশ্যই ক্লাস ৬ কিংবা ক্লাস ১০ মানের মেমোরি কার্ড ব্যবহার করুন।

৭. কম উইজেট চালু রাখুন

উইজেট কোনো অ্যাপস নয়। কিন্তু এগুলো অ্যান্ড্রয়েড সেটে চালু থাকে, যখন থেকে এগুলো সক্রিয় করে দেওয়া হয়। সাধারণত স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা আবহাওয়ার খোঁজখবর, গুরুত্বপূর্ণ তারিখ মনে রাখার কিংবা ব্লুটুথ ও জিপিএসের উইজেট মুঠোফোনের হোম স্ক্রিনে রেখে দেন। একসঙ্গে অনেক উইজেট চালু রাখলে সেগুলো সেটের ব্যাটারি ও প্রসেসরের ওপর চাপ সৃষ্টি করে, যা আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেটটির পারফরমেন্স দুর্বল করে দেয়।

৮. লাইভ ওয়ালপেপার পরিহার করুন

যারা অ্যান্ড্রয়েড সেট ব্যবহার করেন, তাঁরা অনেকেই লাইভ ওয়ালপেপার ফিচারটি পছন্দ করেন। কিন্তু এটি অ্যান্ড্রয়েড সেটের প্রসেসরের ওপর প্রভাব ফেলে, যা আপনার সেটের ব্যাটারি দ্রুত নিঃশেষ করে।

৯. সিংক করা বন্ধ করুন

সিংক অবশ্যই একটি ভালো ফিচার, যা আপনাকে অ্যান্ড্রয়েড সেটের বিভিন্ন ফিচারের আপডেটের খোঁজখবর দেবে এবং ব্যাকআপ করে রাখবে। কিন্তু সিংক অপশন চালু রাখলে এটা নিয়মিত আপনাকে নোটিফিকেশন পাঠাবে এবং বাইরের সার্ভারের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করবে। যেমন আপনি যদি জিমেইলের সিংক অপশন অন করে রাখেন, তবে এটি পাঁচ মিনিট পর পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট চেক করবে, যা আপনার অ্যান্ড্রয়েড সেটের ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করবে। এ সমস্যা সমাধানে সিংক সেটিংসে গিয়ে পছন্দের অ্যাপসগুলোর সিংক অপশন চালু রেখে বাকিগুলো বন্ধ করে দিতে পারেন।

১০. অ্যানিমেশন বন্ধ করুন

অ্যান্ড্রয়েড সেটে আমরা অজান্তেই অনেক অ্যানিমেশন চালু করে রাখি, যা সেটের ব্যাটারি এবং প্রসেসরের ওপর অতিরিক্ত ভার দিয়ে দেয়। যদি আপনি অ্যান্ড্রয়েড সেটের পারফরম্যান্স নিয়ে সন্তুষ্ট না থাকেন, তবে অ্যানিমেশন বন্ধ করে দিলে খুব দ্রুত সেটের পারফরম্যান্স সন্তোষজনক অবস্থায় পাবেন।

c8kPr

Comment Please